Health & Beauty

নিয়মিত রসুন খেলে কি হয়: উপকারীতা ও পরামর্শ

প্রাচীনকালে রসুন শুধু মাত্র বিভিন্ন অসুখ সারানোর জন্য রসুন ব্যবহার হতো। প্রাচীন ভারতীয় চিকিৎসা বিজ্ঞান মতে রসুন মহৌষধ। এতে রয়েছে অজস্র ঔষধি গুণ, পক্ষান্তরে গুরুতর ক্ষতিকর তেমন কিছুই নেই। বর্তমান ইউরোপ, আমেরিকায় তো রসুনকে সুপারফুড (superfood) এর তকমা দেওয়া হচ্ছে।

রসুন যৌবন ধরে রাখতে সাহায্য করে। নিয়মিত রসুন খাওয়ার ফলে বয়সের ছাপ লুকানো যায়। অনেকের আবার প্রস্রাবের সময় জালা-পোড়া করে আবার আমাদের ঠিকতো পায়খানা হয় না। এই সব দরনের সমস্যা থেকে আপনি যদি মুক্তি পেতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে রসুন খেতে হবে।

রসুনের পুষ্টিগুণ

কাঁচা কিংবা রান্না করা প্রতিদিনের রসুন খেলে তা কোলেস্টেরল কমায় যা হার্ট ভালো রাখে। রসুনের মধ্যে অ্যান্টি-ব্যাকটিরিয়াল এবং অ্যান্টি প্যারাসাইটিক গুণাগুণ রয়েছে। রসুনে রয়েছে-

  • ভিটামিন B1, B2, B3, B6
  • ভিটামিন C
  • ক্যালসিয়াম
  • আয়রন
  • ম্যাগনেসিয়াম
  • ম্যাঙ্গানিজ
  • ফসফরাস
  • পটাসিয়াম
  • সোডিয়াম এবং
  • জিঙ্ক

১০০ গ্রাম রসুনের মধ্যে থাকে-

  • ১৫০ ক্যালোরি
  • ৩৩ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট
  • ৬.৩৬ গ্রাম প্রোটিন।

রসুন খাওয়ার উপকারিতা

রসুন এমন একটি খাদ্য পণ্য যা বিভিন্ন ধরণের রেসিপি বা খাদ্য তৈরির জন্য ব্যবহার করা হয়। এটি খেলে স্বাস্থ্যের নানাবিধ উপকারিতা রয়েছে। নিচে রসুন খাওয়ার কয়েকটি উপকারিতা উল্লেখ করা হলো:

  • রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে।
  • কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করে।
  • নিম্ন রক্তচাপের ঝুঁকি কমাতে সহায়তা করে।
  • ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়।
  • রসুন পেট ও গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সমস্যার সমাধানে সহায়তা করে।
  • রসুন মানসিক অবস্থা উন্নয়নে সহায়তা করে।
  • রসুন হাইপারটেনশন রোগের সহায়তা করে।
  • চর্বি কমানোর জন্য রসুন বেশ ভালো কাজ করে
  • ত্বকের ইনফেকশন দূর করতে এন্টিবায়োটিক হিসেবে কাজ করে
  • কৃমির যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দেয়
  • এটি এ্যাজমা ও শ্বাস কষ্ট কমায়
  • হজমে শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়তা করে
  • প্রস্রাবের বেগ বাড়ায়
  • শ্বাসনালীর মিউকাস বের করে দেয়
  • রসুন হাইপারটেনশন কমায়
  • চুল পাকানো প্রতিরোধ করে
  • শরীরে কোলেস্টেরল লেভেল ঠিক রেখে হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়
  • শরীরের তাপমাত্রা বাড়াতে সাহায্য করে
  • রক্তচাপ কমায়
  • টক্সিন দূর করে
  • রসুন গরম তেল দিয়ে ফোলা বা ব্যথা স্থানে মালিশ করলে দ্রুত উপকার পাওয়া যায়
  • দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে চাঙ্গা রাখে
  • ঠান্ডা ও সর্দি-কাশি প্রতিরোধ করতে রসুন অত্যন্ত কার্যকর

প্রতিদিন কতটুকু রসুন খাওয়া উচিত

কাঁচা রসুনে অ্যালিসিন থাকে যার কারণে রসুন কাটা বা বাটার সময় ঝাঁঝালো গন্ধ বের হয়। রসুন কাটা বা বাটার পর সঙ্গে সঙ্গে না খেলে এর মধ্যে থাকা অ্যালিসিন আস্তে আস্তে উবে যায়। তাই রসুন শুকিয়ে বা রান্না করে খেলে তুলনামূলক কম উপকার পাওয়া যায়। তাছাড়া, অ্যান্টি-অক্সিড্যান্টের মাত্রাও বেশি থাকে কাঁচা রসুনে। পুষ্টিবিদগণ পূর্ণবয়স্কদের জন্য মাত্র ২-৩টি কাচা রসুনের কোয়া খাওয়ার পরামর্শ দেন।

সিদ্ধ রসুনের উপকারিতা

  • স্তন ক্যান্সার এবং প্রোস্টেট ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে সিদ্ধ রসুন খেতে পারেন।
  • পেটের সমস্যা, বমি-বমি ভাব কমাতে সিদ্ধ রসুন খাওয়ার চেষ্টা করুন।
  • রোস্টেড রসুন শরীরের ইমিউনিটি বাড়াতে কার্যকর ভূমিকা রাখে।
  • সিদ্ধ রসুন খাওয়ার ফলে স্নায়ুবিক চাপ কমিয়ে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করে।
  • সিদ্ধ রসুন পেটের কৃমি দূর করে থাকে।

কাঁচা রসুন খাওয়ার নিয়ম

উপরের দিকে রসুন খাওয়ার উপকারিতা নিয়ে আলোচনা করা হয়েছিল এখন কাঁচা রসুন খাওয়ার নিয়ম গুলো দেখে নেওয়া যাক-

  • আপনি যদি নিয়ম করে প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে এক কোয়া কাঁচা রসুন খাওয়ার অভ্যাস করে ফেলতে পারেন তাহলে, আপনার শরীর অন্য মানুষের চেয়ে টগবগে ও সুস্থ্য থাকবে।
  • নিতান্তই যদি কাঁচা রসুন খেতে না পারেন তাহলে মধুর সাথে বা গরম চাল ভাজার সাথে কাঁচা রসুন খেতে পারেন।
  • রসুন বা গার্লিক চা তৈরি করেও কিন্তু রসুন খেতে পারবেন।
  • এভাবেও যদি না পারেন তাহলে থেঁতো করে তা গরম পানিতে ফুটিয়ে ছেঁকে পান করা যেতে পারে।
  • আবার গরম গরম ভাতের সঙ্গে ঘি দিয়ে ভাজা রসুন খেতে পারেন।
  • আবার মনে করিয়ে দেই, রোজ সকালে কাঁচা রসুন চিবিয়ে খেলে তা সবচেয়ে বেশি উপকারে আসে।

খালি পেটে রসুন খাওয়ার উপকারিতা

প্রতিনিয়ত খালি পেটে রসূন খেলে একটি শক্তিশালী এন্টিবায়োটিকের কাজ করে। সকালে নাস্তার আগে রসূন খেলে বেশি উপকার পাওয়া যায়। বিশেষ করে খালি পেটে রসূন খাওয়ার ফলে শরীরে থাকা ব্যাকটেরিয়া উন্মুক্ত হয় এবং রসূনের ক্ষমতার কাছে ব্যাকটেরিয়া গুলো হেরে যায়। ফলে শরীরের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া সমূহ বিস্তার তো করতেই পারেনা উল্টো নিঃশেষ হয়ে যায়। খালি পেটে রসুন খেলে তা শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিক হিসেবেও কাজ করে। বিশেষ করে খালি পেটে খাওয়া রসুনের ক্ষমতার কাছে ব্যাকটেরিয়া মোটেই টিকতে পারেনা।

খালি পেটে রসুন খাওয়ার নিয়ম

খালি পেটে রসুন খেতে হলে আপনাকে অবশ্যই সকালের নাস্তা করার আগে খেতে হবে। চিবিয়ে খেতে অসুবিধা হলে দুেই কোয়া রসুন পানি দিয়ে গিলে ফেলার আগে তা কিছুটা কেটে বা থেতলিয়ে নিবেন।

ত্বকে রসুনের উপকারিতা

  • অ্যাকনে সারাতে সহায়ক
  • ত্বকের ওপেন পোরস থাকলে ত্বক নিষ্প্রাণ লাগে এটি সারাতে এক টুকরো রসুনের সঙ্গে অর্ধেকটা টমেটো বেটে পেস্ট করে তা প্যাকের মতো আপনার মুখে লাগিয়ে দশ মিনিট রেখে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এতে ত্বক পরিষ্কার হবে এবং ওপেন পোরস কমে যাবে।
  • স্ট্রেচ মার্কস কমায়

সেক্সে রসুনের উপকারিতা কি

এই কাঁচা বা পাকা অবস্থায় রসুন একটি প্রাকৃতিক ঔষধ হিসেবে পরিচিত। রসুনের মূল উপাদান হিসেবে অ্যালিসিন নামক একটি ক্যামিকেল থাকে যা তার উষ্ণতা, শক্তি উৎপন্ন করে। সেক্সে রসুনের উপকারিতা কি এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত আলোচনা করা যাক-

  • বীর্য ঘন করে ও দ্রুত বীর্যপাত রোধ: প্রতিদিন সকালে অর্থাৎ খালি পেটে নিয়মিত ২ কোয়া কাঁচা রসুন খাবেন। দেখবেন রসুনের ভিতর থাকা অ্যালিসিন আপনার বীর্যকে ঘন দ্রুত বীর্যপাত রোধ করতে সাহায্য করবে।
  • লিঙ্গ শক্ত করে: নিয়ম মেনে রসুন খেতে পারলে রক্তচলাচল বাড়বে। আর এতে করে লিঙ্গ শক্ত করতে সাহায্য করে।
  • মিলন দীর্ঘস্থায়ী কের: রসুনের পেস্ট তৈরি তা ১৫/২০ দিন ২ চামচ করে সকালে খালি সেবন করলে মিলন এমন দীর্ঘস্থায়ী করে যা ওয়ানটাইম ট্যাবলেটের চেয়েও দ্বিগুণ কাজ করবে।
  • টেস্টোস্টেরন বৃদ্ধি: অনেকেরই টেস্টোস্টেরন হরমোনটি কমে যাওয়ার ফলে এই ব্যাপারটি বেশিরভাগ মানুষই এক্সপ্লোর করতে পারেনা। নিয়মিত ২ কোয়া রসুন চিবিয়ে খাওয়ার অভ্যাস করুন দেখবেন ডাক্তারের কাছে যাওয়া লাগবে না।
  • নারীর সেক্স বৃদ্ধি: নারীদের বয়স ৩০ বা তার বেশি হলে তাদের শরীরে ইস্ট্রোজেন এর পরিমাণ কমে শারীরিক চাহিদাও কমতে থাকে। রসুন খাওয়ার মাধ্যমে এই ইস্ট্রোজেন বৃদ্ধি করতে পারবেন।

হাদিসে রসুনের উপকারিতা

রসুন খাওয়ার ব্যাপারে ইসলামে ঐচ্ছিক আইন অর্থাৎ কেউ চাইলে খেতে পারবে আবার না চাইলে না খেলেই ভালো। তবে শর্ত হল যদি খায় তাহলে খাওয়ার পরে মুখে যেন গন্ধ না থাকে তেমনভাবে মেসওয়াক বা ব্রাশ দিয়ে মুখ পরিস্কার করতে হবে। অন্য কারো কষ্ট হয় এমন মুখে গন্ধ নিয়ে মসজিদে বা লোকজনের মধ্যে যাওয়া যাবেনা।

রসুনের অপকারিতা

  • অতিরিক্ত রসুন খেলে চোখের আইরিস ও কর্নিয়ার মাঝে রক্তক্ষরণ হয়ে দৃষ্টিশক্তি হারানোর ঝুঁকি থাকে।
  • শরীরের ঘাম বাড়ায়
  • ডায়রিয়ার ঝুঁকি
  • কাঁচা রসুন ও কাঁচা পেঁয়াজ খাওয়ার মধ্যে অন্তত দুই ঘন্টার তফাত না থাকলে বিষকৃয়া হতে পারে।
  • অতিরিক্ত কাঁচা রসূন খেলে রক্ত পাতলা হয়ে ইন্টারনাল রক্তক্ষরণ ও হজমে সমস্যা হতে পারে।
  • যকৃতের ক্ষতি
  • অবিবাহিতদের কাঁচা রসুন খাওয়া ঠিক না। এতে তারা যৌন ভারসাম্য হারাতে পারে।
  • গর্ভবতী নারীর রসুন খাবেন এতে লেইবার পেইন বাড়তে পারে

সতর্কতা:

খেয়াল রাখতে হবে কিছু বিষয়ে: রসুন খেলে তা কাঁচা কিংবা অল্প ভেজে নিয়ে খাওয়াই ভাল। রান্নার মশলায় বেটে দেওয়া রসুনে খাবারের স্বাদ বাড়ে ঠিকই, কিন্তু তাতে পুষ্টিগুণ তেমন থাকে না বললেই চলে।

লেখা পাঠিয়েছেনঃ মোঃ রিজু

আরও পড়ুন: কোন চা স্বাস্থ্যের জন্য সবচেয়ে ভালো

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Articles

Back to top button