পানির বোতল কেমন হওয়া উচিত

নিরাপদ পানির বোতল

আপনি কি জানেন জলের বোতলের গায়ে কেন এক্সপায়ার ডেট লেখা থাকে? এই মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ আসলে পানির নয় পানি কখনোই খারাপ হয়ে যায় না। বরঞ্চ এই মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখটা হল ওই প্লাস্টিক বোতলের। এর অর্থ হলো ঐ তারিখের পরে প্লাস্টিকের বোতল থেকে কিছু কেমিক্যাল পানির ভিতর অনুপ্রবেশ করে ফলে পানিটা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হয়ে পড়ে। সুতরাং, পুরাতন প্লাস্টিকের বোতল কখনোই বেশি দিন ব্যবহার করা উচিত নয়।

অনেকে প্লাসটিকের বোতল দীর্ঘদিন ব্যবহার করি, যা মোটেই উচিত নয়। এতে ক্যানসার এর ঝুঁকি বাড়ে । প্লাসটিকের বোতলে অনেক দিন পানি রাখলে প্লাসটিক ক্ষয় হয়ে পানির সাথে মিশতে থাকে। এছাড়া ফুড গ্রেড স্টেইনলেস স্টিলের পানির বোতল ব্যবহারের জন্য খুবই ভালো । কারণ এই বোতল গুলো উচ্চ তাপমাত্রা সহনশীল এবং দীর্ঘদিন ব্যবহার উপযোগী ও নিরাপদ।

পানির বোতলের ইতিহাস

প্রথম পুনঃব্যবহারযোগ্য পানির বোতল ১৯৪৭ সালের দিকে আবিষ্কৃত হয়েছিল৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর যখন প্লাস্টিক, অ্যালুমিনিয়াম এবং স্টেইনলেস স্টিলের মতো উপকরণগুলো আগের চেয়ে আরও বেশি সহজলভ্য হওয়ায় এই সময় পানির বোতল আবিষ্কার হয়। এই উপকরণগুলো শুধুমাত্র পানির বোতলই নয়, অন্যান্য ব্যবহারযোগ্য নানা পণ্য যেমন আসবাবপত্র এবং পোশাক তৈরি করতেও ব্যবহার করা হতো।

প্লাস্টিকের বোতলে পানি খাওয়া কতখানি নিরাপদ?

প্লাস্টিক বোতলে কতদিন পানিপান করা যাবে তা নির্ভর করে এটি ফুডগ্রেড প্লাস্টিকের তৈরি কি-না তার উপর। সাধারণত যে সব প্লাস্টিকের পানির বোতলে মিনারেল ওয়াটার বিক্রি হয়, তা একবার ব্যবহার যোগ্য। তেমনিভাবে কোমল পানিয় প্লাস্টিক বোতলও। প্লাস্টিকের গায়ে পুনঃব্যবহার করা যাবে কিনা তা চিহ্ন দেয়া থাকে! তিনটি বাঁকা তীরের মাঝে প্লাস্টিকের গ্রেড দেয়া থাকে। এই তীর চিহ্ন রিসাইকল বা পুনঃব্যবহার করা যায় কি না তা নির্দেশ করে, একই সাথে এই চিহ্ন প্লাস্টিকের মানও নির্দেশ করে। প্লাস্টিকের বোতলে পানি খাওয়া মোটেই নিরাপদ নয়। বোতলের নিচে দেখবেন একটা চিহ্ন আছে যেটা দেখে ‍বুঝতে হবে ওটা কি ধরনের জিনিস দিয়ে তৈরি। ১ থেকে ৭ অবধি নম্বর থাকে। এটাকে বলে রিসাইক্লিং সিম্বল।

উপরের ছবিতে দেখানো যেকোন একটি চিহ্ন প্রতিটি প্লাস্টিকের জিনিসে অবশ্যই থাকে। এর ৫ নম্বর চিহ্ন অর্থাৎ pp হলো ফুড গ্রেডেড প্লাস্টিক। তাই যে প্লাস্টিকের বোতলে এই চিহ্ন দেখবেন সেই বোতল পানি খাওয়ার জন্য ব্যবহার করা যাবে। বাকি গুলো স্বাস্থ্যসম্মত নয়। এছাড়াও চিত্রে দেখানো ১ নং চিহ্নটিকে এক বার ব্যবহারযোগ্য বোতল যেমন মিনারেল ওটারের বোতল বা কোমল পানিয় প্লাস্টিকের বোতলে দেখা যায়। প্লাস্টিকের বোতল ও টিফিন বক্স কেনার সময় তাই ৫ নং চিহ্নযুক্ত প্লাস্টিক কিনুন।

প্লাস্টিকের পানির বোতলের বিকল্প

খাওয়ার পানি বয়ে নেয়ার জন্য প্লাস্টিক বোতল ব্যবহারের প্রয়োজন বোধহয় খুব বেশি দিন হয়তো থাকবে না। প্লাস্টিকের বোতলে পানি খাওয়ার শারীরিক ক্ষতির কথা চিন্তা করেই গবেষকগণ ছোট ছোট পানির বল তৈরি করেছেন যা মুখের ভেতর পুরলেই গলে যায় এবং শরীরে পানির তৃষ্ণা মেটায়। এসব পানিবাহী বল কার্যত পুরোটাই খাওয়া যায়। ভবিষ্যতে বিজ্ঞানীদের আবিষ্কার করা এই বল যখন সর্বত্র পাওয়া যাবে তখন হয়তো সবাই পানি পান না করে পানি খাওয়া শুরু করবে। বিজ্ঞানীদের আবিষ্কার করা এই পানির বলগুলোর নাম দেওয়া হয়েছে ‘ওহো ক্যাপ’(oho cap)।

পানির বোতল পরিষ্কার করার উপায়

সাবান পানিতে বা ডিটারজেন্ট মিশিয়ে বোতল ভিজিয়ে রাখুন। ১০-১৫ মিনিট পর ব্রাশ দিয়ে বোতল পরিষ্কার করে নিন। বোতলের ঢাকনা এবং নল খুলে আলাদাভাবে পরিষ্কার করুন। প্রাকৃতিক পরিষ্কারক ব্যবহার করতে চাইলে সাদা ভিনেগার ব্যবহার করতে পারেন। বোতলে ভিনেগার দিয়ে সারা রাত রেখে দিন। পরদিন সকালে বোতল ধুয়ে নিন। এতে সম্পূর্ণভাবে রাসায়নিক উপাদান মুক্ত হবে।

স্টিলের পানির বোতল

বহনে সুবিধা হওয়ায় অধিকাংশ মানুষ পানি পান করার জন্য স্টিলের পাত্রই ব্যবহার করেন। কিন্তু স্টিলের পাত্রে পানি পান করলে, পানি বেশি ঠান্ডা থাকে বলে বেশিরভাগ মানুষই স্টিলের বোতল ব্যবহার করেন। তাছাড়া বিভিন্ন ধাতুর সমন্বয়ে তৈরি স্টিলের বোতল অত্যধিক ব্যবহার করা স্বাস্থ্যকর নয়। পানির সংস্পর্শে থাকার ফলে স্টিল ক্ষয় হয়ে তা পানির সাথে মিশে শরীরে প্রবেশ করে। এর পরেও যেদি স্টিলের বোতল কেনার চিন্তা করেন তাহলে খেয়াল রাখুন তা যেন প্লাস্টিক বর্জিত হয়।

কাঁচের পানির বোতল

কিছু নিম্নমানের কাঁচে ক্যাডমিয়াম, সীসা থাকে সেজন্য কালিনারী গ্রেড, বোরোসিলিকেট বা সোডা লাইম জাতীয় একটু উচ্চমানেরটা বেছে নিতে হবে। বাজারে প্লাস্টিক, স্টিল, গ্লাস এর তৈরি বিভিন্ন ধরনের ও বিভিন্ন রকমের বোতল আছে পানি রাখার জন্য। কিন্তু সবগুলোই নিরাপদ এবং স্বাস্থ্যসম্মত নয়। স্বাস্থ্যগত দিক বিবেচনায় করলে পানির বোতল হওয়া উচিত কাঁচের। কারন কাঁচ কোনো কিছুর সাথে বিক্রিয়া করে না। আবার এটি দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহার করা যায়। ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা ছাড়া নিরাপদ পানির বোতল হিসেবে কাঁচের বোতল ব্যবহার করাই উত্তম। কাঁচের বোতলে পানি পান করলে শরীরে ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা কম থাকে। পানির জন্য কাঁচের বোতলকে “বস” বলা হয়। শুধু পানি নয় খাদ্য বা আচার সংরক্ষণের জন্যও কাঁচের বোতল অদ্বিতীয়। যদি ভালো কাঁচের বোতল হয় তাহলে পানি বা খাবারের স্বাদ একটুও বদলাবে না।

পানির বোতলের উপাদান

পানির বোতল এর দাম

পানির বোতল এর ব্যবহার

পানি খাওয়ার বোতল

পানির বোতল থাকলে কি হয়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Posts

Begin typing your search term above and press enter to search. Press ESC to cancel.

Back To Top